তৃণমূল শ্রমিক নেতা খুনে বিজেপির দিকে অভিযোগের আঙ্গুল, শুরু চাপানউতর

#মালবাজার: শনিবার রাতে ডুয়ার্সের মাল ব্লকের নিদাম চাবাগানের তৃনমুল কংগ্রেস প্রভাবিত শ্রমিক সংগঠনের নেতা সুনীল লোহারের ক্ষতবিক্ষত মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মৃতদেহটি নিদান চাবাগান সংলগ্ন নিউমাল রেলস্টেশনের কাছে জঙ্গলের মধ্যে পাওয়া যায়। এতেই ক্ষুব্ধ শ্রমিকরা রবিবার সকালে জাতীয় সরক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখায়।
দোষীদের শাস্তির দাবী জানায়। পরে রবিবার দুপুরের দিকে সুনীল লোহারের পরিজন মাল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। অভিযোগ পত্রে নিদান চাবাগানের বিজেপির পঞ্চায়েত সদস্য সুরজ দোরজি, মাল বিধানসভা আহ্বায়ক রাকেশ নন্দী সহ বেশ কয়েকজন বিজেপি নেতা কর্মীদের নাম রয়েছে।
এতেই শুরুহয়েছে পরস্পরবিরোধী চাপানউতর।
মৃত সুনীল লো্হার গত শুক্রবার দুফুরের পর থেকে নিখোঁজ ছিল। শনিবার তার পরিবারের পক্ষ থেকে মাল থানায় নিখোঁজ সংক্রান্ত এক এজাহার করা হয়। তদন্তে নেমে পুলিশ সন্ধ্যার পর তার মৃতদেহ খুজে উদ্ধার করে। এরপর থেকে ওই চাবাগানে উত্তেজনার পারদ চড়তে থাকে। রবিবার সকাল হতেই সুরজ দোরজির বাড়িতে আক্রমণ হয় বলে অভিযোগ।
চাবাগান গিয়ে দেখা গেল একপর্যায়ে সুনশান পরিবেশ। বিজেপির নেতা বা কর্মীদের দেখা পাওয়া যায়নি। সবাই অপেক্ষা করছে কখন মৃতদেহ ফিরবে।
এদিকে এজাহারে বিজেপি নেতাদের নাম উঠে আসায় বিজেপির পক্ষ থেকে বিষয়টি নিয়ে রাজনীতি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করা হয়। বিজেপির যুব মোর্চার জেলা সভাপতি পলেন ঘোষ বলেন, বিজেপি খুনের রাজনীতি করেনা। মৃত্যু বেদনাদায়ক খবর, এটা নিয়ে রাজনীতি করা উচিত নয়। যেভাবে বিজেপি নেতাদের নাম এজাহারে জরানো হচ্ছে সেটা উচিত নয়। আমি পুলিশকে বলব নিরপেক্ষ তদন্ত করে সত্য উদঘাটন করুক। বিজেপি নেতাদের হয়রান করবেন না।
মাল ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি সুশীল প্রসাদ বলেন, এটা এক খুনের ঘটনা।সুনীল গোটা ব্লকে এক পরিচিত নেতা। আমরা অত্যন্ত মর্মাহত। আমি কারো দিকে আঙ্গুল তুলছি না। আমরা চাই পুলিশ দোষীদের গ্রেপ্তার করে কঠোর শাজা দেওয়ার ব্যবস্থা করুক।
News Britant
Author: News Britant

Leave a Comment

Choose অবস্থা