News Britant

Wednesday, August 17, 2022

নারীই শক্তি, নীরবে হাসপাতালে গিয়ে রক্তদান করেন রায়গঞ্জের গৃহবধূ মালতী ভদ্র

Listen

#রায়গঞ্জঃ কথায় বলে, নারীই পারে। তার আদর্শ নিদর্শন দেখা গেল রায়গঞ্জেরই পশ্চিম বীরনগরে। এখানকার বাসিন্দা মালতী ভদ্র একজন হোম মেকার। ওঁনার স্বামী শ্রীমন্ত ভদ্র রায়গঞ্জ জেলা আদালতের আইনজীবী। মালতি দেবীকে পাড়ার অনেকেই চেনেন না। তাঁকে চেনেন না অসুস্থ রোগীও। তবু মালতি দেবী সংসারের কাজ সামলেও অসুস্থ মানুষদের জন্য ডাক পেলেই হাসপাতালে রক্ত দিতে ছুটেন।

নিজেকে নীরবে, নিভৃতে রেখে সমাজ সেবা করে চলেছেন অনবরত। কথায় কথায় মালতি দেবী বলেন, ২০১৯ সালে প্রথম তার রক্তদানের শুরু। এখনও পর্যন্ত  তিনি নির্দিষ্ট সময়ের ব্যবধানে ৬ বার রক্ত দিয়েছেন। কোভিড পরিস্থিতিতেও সমস্ত ভয় উপেক্ষা করে হাসপাতালে গিয়ে রক্ত দিয়েছেন তিনি।

মালতী দেবীর দাবি, আমার রক্ত দেওয়ার উদ্দ্যেশ্যে হল, অন্য মহিলারাও যাতে এগিয়ে আসে।বিপদে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে কিছু করার  ইচ্ছে থেকেই নিয়মিত  রক্তদান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তিনি জানান, ২০১৯ সালে ১০ জানুয়ারি মালতী ভদ্র সামাজিক মাধ্যমে দেখেন, করনদিঘীর বাসিন্দা জাহাঙ্গীর আলমের দুই সন্তান থ্যালাসেমিয়ার রোগী।

এদের একজনের বয়স ২, অন্যজনের বয়স ৩। তারা হাসপাতালে ভর্তি। তাদের বি+ রক্তের প্রয়োজন। মালতীদেবী এমন খবর দেখেই ছুটে যান হাসপাতালে। প্রথম বার দান করেন রক্ত। তাঁর একমাত্র ছেলে রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠরত। তিনি জানান, এই দানের মধ্য দিয়ে প্রত্যক্ষভাবে অসহায় মুমূর্ষু রোগীদের পাশে দাঁড়াতে পারছি এটাই আনন্দ।

আমরা যদি রক্ত দেই তবে আমরা শুধু এক একটি মানুষকে বাঁচাতে পারব তাই নয়, এক একটি পরিবারের মুখেও হাসি ফোটাতে পারি। তাঁর এই কাজের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন রায়গঞ্জে রক্তদান আন্দোলনের কর্মী কৌশিক ভট্টাচার্য। তিনি বলেন, উনি নীরবে থেকে নিভৃতে রক্তদান করেন। আমাদের অনেকের কাছে প্রেরণা জোগায় তাঁর এই মহতি কাজ।

News Britant
Author: News Britant

Leave a Comment