News Britant

Thursday, August 11, 2022

প্রত্যন্ত মানজিংয়ে হোম স্টের মাধ্যমে পর্যটনে নতুন দিশা

Listen

#মালবাজার: কালিম্পং জেলার গরুবাথান ব্লকের প্রত্যন্ত পাহাড়ি গ্রাম মানজিংয়ে হোম স্ট্রের মাধ্যমে পর্যটনে নতুন দিশা খুলতে চলছে। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী অন্যতম স্বপ্ন রাজ্যে পর্যটনের বিকাশ। পাহাড় থেকে সমতল সর্বত্র হোম স্টে পর্যটনের এক দিশা। প্রত্যন্ত এলাকায় মানুষের আর্থিক বিকাশে হোম স্টে এক বিশেষ ভুমিকা নিয়ে থাকে। এই রকম ভাবে মানজিংয়ে শুক্রবার এক নতুন হোম স্টের মাধ্যমে প্রত্যন্ত পর্যটনের দিশা দিতে চলছে।
কালিম্পং জেলার গরুবাথান ব্লকে এক প্রত্যন্ত পাহাড়ি গ্রাম মানজিং। ডুয়ার্সের ওদলাবাড়ি থেকে সোজা উত্তর অভিমুখে চলে গেছে রাজ্য সরক। সেই সরক ধরে এগোলেই প্রথমে পড়বে মানাবাড়ি চা বাগান। মানাবাড়ি তুরবাড়ি হয়ে আসে জলপাইগুড়ি জেলার শেষ সীমা পাথর ঝোড়া চা বাগান। ওদলাবাড়ি থেকে পাথর ঝোড়ার  দূরত্ব মাত্র ১৬ কিমি।
পাথরঝোড়া চা বাগান থেকে ৮ কিমি দূরে ৪৫০০ ফুট উচুতে পাহাড়ের উপত্যকায় রয়েছে মানজিং পাহাড়ি গ্রাম। পাথরঝোড়া থেকে পাহাড়ি আঁকাবাঁকা পথ পেরিয়ে যেতে হয় মানজিং গ্রামে। লোয়ার মানজিং ও আপার মানজিং দুটি গ্রাম মিলিয়ে প্রায় ১০০০ পরিবারের বাস।আদা,ঝাড়ু ও বড় এলাচের আবাদ করা এবং পশুপালন এখানের জীবিকা।  পাহাড়ি নৈসর্গিক সুন্দর এই গ্রামের পাহাড়ের  একদিকে যখন রোদ অন্যদিকে তখন মেঘে। একদিকে পাহাড়ি ঝরনা অন্যদিকে স্রোতস্বিনী পাহাড়ি ঝোড়া।
এই রকম এক পাহাড়ি গ্রামে কর্মসংস্থান ও গ্রামীণ বিকাশের লক্ষ্য নিয়ে নেপালী ভাষা বিভিন্ন মাধ্যমের অভিনেতা বিক্রম পরাঞ্জলি এই প্রত্যন্ত গ্রামে প্রথম আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করলেন এক সুন্দর হোম স্টের। শুক্রবার এই হোম স্টের উদ্বোধন করেন বিশিষ্ট সাংবাদিক ও পর্যটন বিশেষজ্ঞ রাজেন প্রধান। উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় জননেতা ভারতীয় গোর্খা প্রজাতান্ত্রিক মোর্চার ২ নম্বর জোনাল সভাপতি পেমা ইয়ানজং, স্থানীয় স্কুল শিক্ষক জে,বি, ছেত্রী সহ অন্যান্যরা।
মানজিংয়ের প্রাকৃতিক নৈসর্গিক সৌন্দর্য দেখতে গত কয়েক ধরেই পর্যটকরা আসা যাওয়া করত। কিন্তু, থাকার কোন জায়গা ছিলনা। সদ্য এই হোম স্টে সেই সমস্যা অনেকটাই মিটেছে। নতুন করে কর্মসংস্থান সুযোগ তৈরি হতে চলছে।   এই সুন্দর জায়গা থেকে দিনে বহু নিচে তিস্তা, লিস ও ঘিস নদীর মিলন দেখা যায় দিনের বেলা। রাতে দূরের শিলিগুড়ি শহরের আলোক সজ্জা দেখা যায়। সকালে পায়ে হেটে ঘুরতে ঘুরতে যাওয়া যায় স্থানীয় এক শিব মন্দিরে। পাহাড়ের উপরে শিব মন্দিরের চত্বরে বসে খানিক সময় কাটিয়ে দেওয়া যায়।
হোম স্টের কর্নধার পেশায় অভিনেতা বিক্রম জানালেন, আমি গ্রামের সন্তান। করোনা সংক্রামণ ও সংকটের জন্য গ্রামের যুবকেরা কুর্মহীন হয়ে পড়ে। বেশিরভাগ সময় আমি  কালিম্পংয়ে থাকলেও এই গ্রামে বিকল্প কর্ম সংস্থান করতে এই উদ্যোগ নিয়েছি। আশা পর্যটনের উপর নির্ভর করে বেশ কয়েকজনের জীবিকার সংস্থান হবে।

Leave a Comment