News Britant

Friday, January 27, 2023

ভাসান বিপর্যয়ে মানুষকে বাঁচিয়ে মেটেলি ব্লকের ৩ যুবককে সম্বর্ধনা

Listen

( খবর টি শোনার জন্য ক্লিক করুন )

#মালবাজার: গত ৫ অক্টোবর মালনদীর বিসর্যন ঘাটের বিপর্যয়ে নিজেদের জীবন বিপন্ন করে মানুষের জীবন রক্ষা করেছিল কিছু যুবক। তাদের মধ্যে ছিলেন মেটেলি ব্লকের ৩ জন।তাদের সংবর্ধনা দিল বিধাননগর গ্রাম পঞ্চায়েত। তরিফুল ইসলাম ও ফরিদুল ইসলাম। এরা সম্পর্কে মামা-ভাগ্নে। আদিবাসী যুবক মনোজ মুন্ডা। দশমীর দিন এরা ৩ জনই মাল নদীতে প্রতিমা বিসর্জন ঘাটে হরপার জলে ঝাপিয়ে পড়েছিল।

প্রাণ বাঁচিয়েছিল অনেকের। এদের মধ্যে তরিফুল ও ফরিদুলের  বাড়ি মেটেলি ব্লকের বিধাননগর গ্রাম পঞ্চায়েতের শালবাড়ি এলাকায়। মনোজের বাড়ি ওই গ্রাম পঞ্চায়েতেরই বাটাইগোল চা বাগানে। তারাও ওই দিন প্রতিমা বিসর্জন দেখতে গেছিল। চোখের সামনে মানুষ জনকে ভাসতে দেখে শান্ত থাকতে পারেনি তারা। লাফ দেয় নদীর সেই জলে। তাদের সেই কীর্তি সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার হতেই তাদের সম্বর্ধনা দিতে এগিয়ে আসে বিভিন্ন সংস্থা।

তাদের সেই কাজের জন্য এবার তাদের সন্মান জানানো হলো। বৃহস্পতিবার ওই তিন যুবককে একসাথে সম্বর্ধনা জানালো বিধাননগর গ্রাম পঞ্চায়েত কতৃপক্ষ। এদিন তাদের খাদা পরিয়ে, পুষ্পস্তবক ও মানপত্র প্রদান  করে সন্মান জানান। বিধাননগর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান নিতেন রায় বলেন, এই তিন যুবক  ভয়ঙ্কর  সেই রাত্রে নিজের জীবনের তোয়াক্কা না করে যেভাবে হরপার জলে লাফ দিয়ে বহু মানুষের প্রাণ বাঁচিয়েছেন তাতে আমরা তাদের কুর্নিশ জানাই।

তারা বিধাননগর গ্রাম পঞ্চায়েতের গর্ব।এভাবেই সকলকে মানুষের বিপদের সময় এগিয়ে আসা উচিৎ।আমরা শ্রদ্ধা জানাই তাদের মা বাবা দেরও কেও এই রকমের সন্তান জন্ম দেওয়ার জন্য।যুবকেরা জানায়, “প্রতি বছর আমরা মাল নদীতে বিসর্জন দেখতে যাই। ওই দিন গিয়েছিলাম।আমরা নদীর পারেই ছিলাম। হটাৎ দেখি হরপার জলের স্রোতে মানুষ ভেসে যাচ্ছে।

ওই সময়েই নিজের মোবাইল বন্ধুদের হাতে দিয়ে নদীতে লাফ দেই। অনেককেই আমরা জলের স্রোত থেকে তুলে নদীর পাড়ে নিয়ে এসেছি। আমাদেরও কিছুটা লেগেছে। এদিন এই সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিধাননগর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপ প্রধান রাজ সবর, গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য সদস্যা, কর্মী সহ অন্যান্যরা।

Leave a Comment