News Britant

Thursday, December 8, 2022

ভোপালের সঙ্গেই র‌্যাবের জালে বাংলাদেশের নতুন জঙ্গি সংগঠনের ১০ সদস্য, উদ্ধার বিপুল অস্ত্র

Listen

( খবর টি শোনার জন্য ক্লিক করুন )

#হাবিবুর রহমান, ঢাকা: ইসলামি স্টেট গড়ার দু:স্বপ্ন নিয়ে শুধু বাংলাদেশেই নয়-ভারতেও জঙ্গি সংগঠন গড়ে তুলছে তারা। দেশে পার্বত্য জেলায় সবে মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছিল নতুন জঙ্গি সংগঠন ‘জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়া’। জঙ্গিপনা চালানোর বাসনায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চোখে ধুলো দিতে এরা প্রতিনিয়ত নতুন নতুন নাম ধারণ করছে। বাংলাদেশে কার্যকলাপ শুরু করার আগেই এলিট ফোরস র‌্যাবের বিশেষ অভিযানে ধরা পড়ল সংগঠনের ১০ সদস্য। প্রায় একই সময়ের মধ্যে বাংলাদেশের পাশাপাশি ভারতের ভোপালেও পাকড়াও হয়েছে পাকড়াও হলো দুই বাংলাদেশি জঙ্গি মহম্মদ হামিদুল্লাহ ওরফে রাজু গাজি ও মহম্মদ আকিল ওরফে আহমেদ।

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় স্লিপার সেল তৈরি করার ছক কষেছিল জামাত-উল-মুজাহিদিন (বাংলাদেশ)। তাতে মদত জোগাচ্ছিল ভারতীয় আল কায়েদা তথা বাংলাদেশের আনসারুল বাংলা টিম। বাংলাদেশের পার্বত্য দুই জেলা বান্দরবন ও রাঙামাটিতে বৃহস্পতিবার রাতে র‌্যাব বিশেষ অভিযান চালিয়ে নতুন জঙ্গি সংগঠনের ৭ জন এবং পাহাড়ি বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনের ৩ জন-সহ মোট ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। তাদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়েছে।ভারত ও মায়ানমারের সীমান্তঘেঁষা দুর্গম পাহাড়ে বাড়িছাড়া কিছু তরুণ জঙ্গি প্রশিক্ষণ নিচ্ছে। নতুন এই জঙ্গি সংগঠনকে প্রশিক্ষণ দিচ্ছে ‘কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট’  নামে একটি সশস্ত্র গোষ্ঠী।

সম্প্রতি গজিয়ে ওঠা জঙ্গি সংগঠন ‘জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়া’র শীর্ষ নেতাদের ধরতে পার্বত্য অঞ্চল বান্দরবন ও রাঙামাটির পাহাড়ে অভিযান শুরু হয়। জঙ্গিপনায় জড়িয়ে নতুন করে কথিত হিজরতের নামে ঘরছাড়া তরুণরা ‘জামাতুল আনসারে’র হয়ে পাহাড়ি এলাকার আস্তানায় আশ্রয় নেয়। এসব আস্তানায় হিজরত করা তরুণদের ভারী অস্ত্র চালানোর প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। উগ্রপন্থায় উদ্বুদ্ধ হয়ে স্বেচ্ছায় হিজরতের নামে বাড়ি থেকে নিরুদ্দেশ হওয়া ১৯ জেলার ৫৫ তরুণের তালিকা প্রকাশ করে র‌্যাব। তাদের মধ্যে ৩৮ জনের পূর্ণাঙ্গ নাম-ঠিকানা প্রকাশ করা হয়।

জঙ্গি ও বিচ্ছিন্নতাবাদীদের বিরুদ্ধে পার্বত্য অঞ্চলে ধারাবাহিকভাবে অভিযান চালায় যৌথবাহিনী। এখানকার পাহাড় দুর্গম, ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় পর্যটকদের ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে স্থানীয় প্রশাসন। এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের সহকারী পরিচালক এএসপি আনম ইমরান খান ও পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।বাংলাদেশের মতো বিভিন্ন জায়গায় গণধোলাই ও সংঘর্ষের কথিত ভিডিও দেখিয়ে ভারতেও জঙ্গি নিয়োগ করছে এরা। সেই সূত্র ধরে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় স্লিপার সেল তৈরি করার ছক কষেছিল জামাত-উল-মুজাহিদিন (বাংলাদেশ)। তাতে মদত জোগাচ্ছিল ভারতীয় আল কায়েদা তথা বাংলাদেশের আনসারুল বাংলা টিম। কলকাতা ও জেলায় জঙ্গি নেটওয়ার্ক সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য  পেতে এবার ভোপাল থেকে মধ্য প্রদেশ পুলিশের সহায়তায় কলকাতায় বাংলাদেশি দুই জঙ্গিকে নিয়ে এল কলকাতা পুলিশের স্পেশাল টাস্ক ফোর্স।

বৃহস্পতিবার ওই দুই জঙ্গিকে ব্যা ঙ্কশাল আদালতে তোলা হলে তাদের ২ নভেম্বর পর্যন্ত পুলিশ হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন বিচারক।পুলিশ জানিয়েছে, ধৃত দুই অভিযুক্ত বাংলাদেশি জঙ্গির নাম মহম্মদ হামিদুল্লাহ ওরফে রাজু গাজি ও মহম্মদ আকিল ওরফে আহমেদ। ভোপাল থেকে তাদের গ্রেপ্তার করেছিল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এনআই এ। ইতিমধ্যেই কলকাতা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয় আল কায়েদার দুই জঙ্গি ফয়জল আহমেদ ও মহম্মদ হাসনত। দ্বিতীয়জনের মালদহের বাড়ি থেকে উদ্ধার হয় একটি পেন ড্রাইভ, যাতে রয়েছে জঙ্গি কার্যকলাপের বহু তথ্য। গোয়েন্দাদের দাবি, ওই পেন ড্রাইভ ও বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা যায় যে, হাসনতরা ভারতীয় আল কায়েদা বা আকিস ও বাংলাদেশের এবিটির সদস্যল হলেও তাদের যোগসূত্র রয়েছে জেএমবির সঙ্গেও। মাস দু’য়েক আগে ৬ জন বাংলাদেশি জঙ্গিকে ভোপাল থেকে গ্রেপ্তার করেন এনআইএ আধিকারিকরা।

Leave a Comment