News Britant

Friday, December 9, 2022

সংসার ছেড়ে সন্ন্যাসিনী হলেন রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোলের অধ্যাপিকা ড. রুমকি সরকার

Listen

( খবর টি শোনার জন্য ক্লিক করুন )

#চন্দ্র নারায়ণ সাহা, রায়গঞ্জঃ সন্ন্যাস নিলেন রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল বিভাগের অধ্যাপিকা ড. রুমকি সরকার। তবে সন্ন্যাসিনী হলেও নিজের কর্মক্ষেত্রের ছাত্র ছাত্রীদেরকে ছেড়ে দিচ্ছেন না তিনি। এমনটাই জানালেন সদ্য সন্ন্যাস নেওয়া অধ্যাপিকা। অধ্যাপিকা ড. সরকার সন্ন্যাস নিলেও ছাত্র ছাত্রীদের কাছে তিনি  অত্যন্ত জনপ্রিয় বলে জানালো পড়ুয়া থেকে বিভাগীয় অধ্যাপকেরা। বিভাগীয় অধ্যাপক ড. তমাল বসু রায় বলেন, শিক্ষিকা হিসেবে পড়ুয়াদের কাছে ড. সরকার অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং শৃঙ্খলা পরায়ন।

ড. রুমকি সরকারের তত্ত্বাবধানে গবেষণার কাজে নিয়োজিত ওই বিভাগের রিসার্চ স্কলার বাপি সাহা বলেন, ম্যাডাম ভীষণ শৃঙ্খলা পরায়ন শিক্ষিকা। উনি শুধু শ্রেণীকক্ষে পঠন পাঠনেই শিক্ষাকে আটকে রাখেন না। শ্রেনী কক্ষের বাইরেও ভালো মানুষ হয়ে ওঠার পেছনে পড়ুয়াদের সহযোগিতা করেন। ওনার এই ভিন্ন জীবন যাত্রা আমাদের স্বাভাবিক পড়াশোনার ছন্দ নষ্ট করবে না।  এই সন্ন্যাস গ্রহণ নিয়ে রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার দূর্লভ সরকার বলেন, ‘জীবনে কে, কোথায়, কিভাবে শান্তি খুঁজে ফেরে, সেটা একান্তই তাঁর ব্যক্তিগত বিষয়। এ ব্যাপারে আমার কোনও মন্তব্য নেই। তবে উনি তো বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াবেন। সেটা নিয়ে তো কোনও সমস্যা নেই।

ওনার জন্যে অনেক শুভেচ্ছা রইল।‘ বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা, বাণিজ্য ও আইন বিভাগের ডিন দীপক রায় বলেন, ‘কে কোথায় দীক্ষা নেবেন, সন্ন্যাস নেবেন তা তো আমরা বলতে পারি না।‘ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সঞ্চারি রায় মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘আমি খবরটা পেয়েছি। আমার সঙ্গে ওনার কথা হয়নি।‘

জানা গেছে, রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয় ভূগোল বিভাগের অধ্যাপিকা ড. রুমকি সরকার বলেন, সন্ন্যাসের নিয়ম মেনে সন্ন্যাসী হয়েছি। সংসারের জীবন ত্যাগ করলেও কর্মজীবনে থাকছি। তবে বৃহৎ সংসারে থাকব। এই জীবনে আসা হঠাৎ নয়। অনেকদিন ধরে এর মধ্যে ছিলাম। ব্রম্মচর্য ছাড়া তো এই জীবনে আসা যায় না, যারা আমাকে কাছের থেকে দেখেছেন তারা জানেন। সন্ন্যাস যোগের জন্য অনেকদিন ধরে অপেক্ষায় ছিলাম। ঈশ্বরের কৃপায় যোগ মিলল। তিনি আরও বলেন, আড়াই বছর আগে মহারাষ্ট্রের নাসিকের থেকে ২০ কিমি তনবোকেশরে গিয়ে গুরুদেবের সঙ্গে কথাবার্তা বলে এসেছিলাম। এবারে গিয়ে যোগ নিলাম। উল্লেখ্য, ১২টি জ্যোতি লিঙ্গের মধ্যে একটি জ্যোতিলিঙ্গ রয়েছে ওখানে।

১২ বছর আগে বর্ধমানে দীক্ষা নিয়েছিলাম গুরুদেবের কাছে। মা, দাদা ও দিদির সম্মতিতে এই জীবনে এসেছি। সবার সঙ্গে যোগাযোগ রাখব, কারণ আমার তো কর্মজীবন আছে। তিনি জানান, আগামী ১লা নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ে গেরুয়া পোশাক পরেই যাব। দীর্ঘদিন ধরে চিরুনী ব্যবহার না করায় মাথায় জটও হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোলের অধ্যাপিকা ড. রুমকি সরকার অবিবাহিতা।  ৩৮ বছরের এই অধ্যাপিকার আদি বাড়ি বর্ধমানে। তিনি ২০১৬ সালে রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপিকা পদে যোগ দেন। বাড়িতে বৃদ্ধা মা ও দাদা রয়েছেন। বর্তমানে  তিনি  রায়গঞ্জের বীরনগরে বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকেন।

Leave a Comment