News Britant

ঐতিহ্যবাহী বিদ্যালয়ের নবনির্মিত দ্বিতল ভবনের উদ্বোধন

Listen

( খবর টি শোনার জন্য ক্লিক করুন )

#মালবাজার: ঐতিহ্যবাহী বিদ্যালয়। বহু বছর ধরেই ইতিহাসের পথ চলার সাক্ষী। কালিম্পং জেলার গরুবাথান ব্লকের প্রত্যন্ত এলাকার রঙ্গু উচ্চ বিদ্যালয়। বিদ্যালয়ের নবনির্মিত পাকা দ্বিতল ভবনের আনুষ্ঠানিক দ্বারদোঘাটন হল। পাশাপাশি ওই এলাকাগুলিতে পানীয় জলের সমস্যা নিরসনের একগুচ্ছ জলের প্রকল্পেরও কাজেরও সূচনা হয়। খুশি সকলেই।
স্থানীয়রা বলেন, পাহাড়ের রঙ্গু বিদ্যালয়ের পথ চলা স্বাধীনতার পূর্বে। সে সময় পাহাড়ি এই এলাকা জঙ্গলাকীর্ণ। স্থানীয়রাই বিদ্যালয় চালুর উদ্যোগ নিয়েছিলেন। এখনও বিদ্যালয়ের স্থাপনার বছর ১৯৪৬ বলেই উল্লেখ রয়েছে। স্থানীয় রায় কাঠ এবং অন্যান্য সামগ্রী দিয়ে বিদ্যালয়ের ঘর তৈরি করেছিলেন। ১৯৭৫ সালে বিদ্যালয়টি হয় আগুনে ভস্মিভূত হয়। ফের কোমর বেঁধে বিদ্যালয় তৈরীর উদ্যোগ নেন স্থানীয় বাসিন্দারাই। ১৯৮০ সালে বিদ্যালয়টি অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত মান্যতা পায়।
১৯৮২ সালে মাধ্যমিক পর্যায়ে উন্নীত হয়। এই বিদ্যালয় ২০১২ সালে উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের মর্যাদাও জোটে। ২৩ জন শিক্ষক- শিক্ষিকা এবং তিনজন অশিক্ষক কর্মচারী রয়েছেন। বিদ্যালয়ের বর্তমান পড়ুয়ার সংখ্যা প্রায় ৪০০। রঙ্গু, পঁয়তাল্লিশ নম্বর, দলগাঁও ইত্যাদি এলাকা থেকে শুরু করে প্রত্যন্ত তিন কাটারি থেকেও এখানে পড়ুয়ারা পড়তে আসে। এতদিন বিদ্যালয়ের ভবন কাঠেরই ছিল। পরিকাঠামোগত সমস্যার মধ্য দিয়েই বিদ্যালয় চলছিল।
কাঠের বিদ্যালয় ভবনের পাশেই বর্তমানে দ্বিতল পাকা ভবন তৈরি করে দেওয়া হয়েছে। রুরাল ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট ফান্ড (আর  আই ডি এফ) প্রকল্পের ২ কোটি ২৪ লক্ষ ৪৫ হাজার টাকা দিয়ে ভবনটি তৈরি হয়েছে। কালিংপং এর বিধায়ক রুদেন সাদা লেপচা, জি টি এর ডেপুটি এক্সিকিউটিভ সঞ্চবীর সুব্বা, ৪৫ নম্বর সমষ্টির সদস্য লাকপা নামগেল ভুটিয়া, ৪৪ নম্বরের  সদস্য হরকমান ছেত্রী, ৪৩ নম্বরের সদস্য রতন থাপা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
লাখপা নামগেল ভূটিয়া বলেন, রঙ্গু উচ্চ বিদ্যালয়ের সাথে সুমহান ইতিহাস যুক্ত রয়েছে। এখানে পরিকাঠামগত সমস্যা ছিল। নতুন ভবন চালুর পর তা অনেকটাই মিটে গেল। আমরা এদিন তোদে, তাঙন্তা, খাসমহল, প্যাটেন গোদক, সুরুক ইত্যাদি এলাকা গুলির জন্য বাড়ি বাড়ি জল সংযোগ প্রকল্পের কাজও শুরু করেছি। সেই প্রকল্পের কাজের সূচনাও আজকেই হয়েছে।
রুদেন সাদা লেপচা, সঞ্চবীর সুব্বার বক্তব্য, উন্নয়নমূলক কাজই আমাদের লক্ষ্য। বিদ্যালয়ের প্রবীণ শিক্ষক কারসাঙ রাই বলেন পূর্বে স্থানীয়দের অগ্রণী ভূমিকাতেই বিদ্যালয়ের পরিকাঠামো গড়ে তোলা হয়েছিল। বর্তমানে নতুন ভবন চালু হওয়াতে পঠন-পাঠনের সুবিধা হবে। বিবেক রাই, মুসকান লামডিং প্রমুখ পড়ুয়ারাও খুশি এদিন মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়েছে।

Leave a Comment