বাংলাদেশে তাপদাহে সিল্কসিটি ট্রেনে আগুন ঈশ্বরদীতে রেললাইনের পাত বেঁকে গেছে

#হাবিবুর রহমান, ঢাকা: বাংলাদেশে চলতি বছর সীমাহীন তাপদাহে মানুষের জীবনযাত্রা চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে। বাংলাদেশে সরবোচ্চ তাপমাত্রা উঠেছে চুয়াডাঙ্গায় ৪২.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। অত্যধিক তাপের কারণে টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুরে রাজশাহীগামী সিল্কসিটি ট্রেনে আগুন লেগেছে। অপরদিকে উত্তরের জেলা পাবনার ঈশ্বরদীতে শুক্রবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৪২ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এতে করে পাবনার ঈশ্বরদী বাইপাস রেলওয়ে স্টেশনের কাছে একটি রেললাইনের পাত বেঁকে যায়।

রাজশাহীগামী সিল্কসিটি ট্রেনে  শুক্রবার বিকেলে মহেড়া রেলস্টেশন ক্রসিংয়ের সময় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় ট্রেনের যাত্রীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। যাত্রীরা ভয়ে ট্রেন থেকে দ্রুত নামার সময় অন্তত ১০ জন আহত হন। এক  ঘণ্টা ২৫ মিনিট পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। এরপর ট্রেনটি আবার রাজশাহীর উদ্দেশে ছেড়ে যায়। বিকেল পাঁচটার দিকে ঢাকাগামী কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেনকে ক্রসিং করার জন্য রাজশাহীগামী সিল্ক সিটি ট্রেন মহেড়া স্টেশনে থামে। এ সময় ট্রেনের যাত্রীরা আতঙ্কিত হয়ে ট্রেন থেকে নেমে আগুন লাগার কথা স্টেশনে কর্মরতদের জানান।

স্টেশনের কর্মচারীরা প্রায় দেড় ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। এ সময় সিরাজগঞ্জ এক্সপ্রেস ট্রেনটি মির্জাপুর স্টেশনে যাত্রাবিরতির পর অতিরিক্ত প্রায় দেড় ঘণ্টা সময় আটকে থাকে। মহেড়া রেলস্টেশন মাস্টার সোহেল খান জানান, সিল্কসিটি এক্সপ্রেস ট্রেনটি থামানোর সময় গরমের কারণে ট্রেনের হাইড্রোলিক ব্রেক থেকে আগুন লাগে। যাত্রীরা তাৎক্ষণিক জানতে পারায় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটেনি। ট্রেন থেকে লাফিয়ে নিচে নামার কারণে আহত কয়েকজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এছাড়া পাবনার ঈশ্বরদীতে শুক্রবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে ৪২ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গরমের কারণে ঈশ্বরদী বাইপাস রেলওয়ে স্টেশনের কাছে একটি রেললাইনের পাত বেঁকে যায়। এ ঘটনায় অল্পের জন্য বড় অঘটন থেকে রক্ষা পায় খুলনা থেকে রাজশাহীগামী আন্তঃনগর ট্রেন কপোতাক্ষ এক্সপ্রেস। আর দু’টি আন্তঃনগর ট্রেন এক ঘণ্টার বেশি দেরিতে গন্তব্যে ছেড়ে যায়। রেলওয়ে অফিসের লোকজন দুই ঘণ্টা রেললাইনের ওপর জল ঢেলে তাপমাত্রা কমিয়ে আনার পর বেঁকে যাওয়া রেলপথ স্বাভাবিক করেন।

রেলওয়ের ঈশ্বরদী বাইপাস স্টেশনে কর্মরত শ্রমিক শুভ হোসেন জানান, কপোতাক্ষ ট্রেনটি ঈশ্বরদী স্টেশন ছাড়ার পর ঈশ্বরদী বাইপাস স্টেশনের কাছে যে লাইনে ট্রেনটি যাচ্ছিল সেই রেললাইন দূর থেকে দেখে বাঁকা মনে হচ্ছিল। তাৎক্ষণিকভাবে স্টেশন মাস্টার তাওলাদ হোসেন বিষয়টি দেখে পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে আধিকারীকদের অবহিত করেন। বিভাগীয় রেলওয়ের পরিবহন কর্মকর্তা, সহকারী প্রকৌশলীসহ অন্য কর্তারা দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে ট্রেনকে পেছনে এনে অন্য রেললাইন দিয়ে কপোতাক্ষ ট্রেন থ্রো পাস করার ব্যবস্থা নেন।

বেঁকে যাওয়া রেললাইনে ছিল খুলনা থেকে রাজশাহীগামী আন্তঃনগর ট্রেন কপোতাক্ষ এক্সপ্রেস। প্রথমে ট্রেনটি থামিয়ে ঈশ্বরদী লোকোসেডের নিকটবর্তী রেললাইন দিয়ে পেছনে টেনে নেওয়া হয়। তারপর অপর একটি লাইনের মাধ্যমে রাজশাহীর উদ্দেশে প্রায় ১ ঘণ্টা পরে ছেড়ে যায়। রেললাইন বেঁকে যাওয়ার কারণে খুলনা থেকে চিলাহাটিগামী আন্তঃনগর রূপসা এক্সপ্রেস ও ঢাকা থেকে রাজশাহীগামী ধূমকেতু এক্সপ্রেস ট্রেন দুটি এক ঘণ্টারও বেশি সময় পর গন্তব্যের উদ্দেশে ছেড়ে যায়।

News Britant
Author: News Britant

Leave a Comment

Choose অবস্থা