হাঁস, মুরগি পালন করে উচ্চমাধ্যমিকে ৭০% নম্বর পেল আদিবাসী মেয়ে প্রভা

#মালবাজার: দারিদ্রতা ও সামাজিক প্রতিবন্ধকতা যে কোন বাধা নয়, মনের জোর থাকলে সব অতিক্রম করে সাফল্যে পৌছানো যায় সে কথাই প্রমাণ করলো এক আদিবাসী কন্যা প্রভা মিঞ্জ। পড়ার খরচ যোগাতে বাড়িতে হাঁস, মুরগি, ছাগল পালন করতে হয়েছে, তবু থেমে থাকেনি প্রভা।নিজের মনের জোরে নিয়মিত গৃহ শিক্ষক ছাড়াই এবার উচ্চমাধ্যমিকে ৭০% নম্বর পেয়েছে মাল আদর্শ বিদ্যা ভবনের কলা বিভাগের এই ছাত্রী।
মালবাজার শহরের চাবাগান লাগোয়া ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সূর্যসেন কলোনি। সেই কলোনির এক কামরা ঘরেই থাকে প্রভা। বাবা সুরেশ মিঞ্জ একটি হোস্টেলের রাতের চৌকিদার। মাসে মাত্র ৩০০০ টাকা বেতন পান, মা নিউগ্লেনকো চা বাগানের শ্রমিক। দৈনিক হাজিরা ২৫০ টাকা। এই সামান্য রোজগারের মধ্যে দিয়ে মেয়ের পড়া শোনার খরচ যোগাতে যে কি পরিমাণ সমস্যা হয়েছে তা এই পিতা মাতাই জানেন। পড়ার খরচ যোগাতে বাড়িতে হাঁস, মুরগি, ছাগল পালন করেছে। বিশেষ সময়ে এদিক ওদিক টুকটাক কাজও করেছে। তাবু পড়াশোনা বন্ধ করেনি এই দরিদ্র আদিবাসী কন্যা। অর্থের অভাবে নিয়মিত গৃহ শিক্ষক রাখতে পারেনি।
নিজের মুখে প্রভা জানান, টাকার সমস্যায় সেভাবে গৃহ শিক্ষকদের কাছে কোচিং নিতে পারিনি তবে মৃনাল স্যার যথেষ্ট সাহায্য করেছে। ভবিষ্যতে চাকুরী করে পিতা মাতার পাশের দাড়াতে চায় এই কন্যা। সেই লক্ষ্য নিয়েই সংগ্রাম করে চলছে। প্রভার মতো মেয়েরা প্রতিষ্ঠিত হোক, নিজের প্রভায় অন্যকে বিকশিত করুক এই কামানোই সবার।
News Britant
Author: News Britant

Leave a Comment

Choose অবস্থা