বন্যপ্রাণীর ভয়ে দুপুরের মধ্যে ভোট গ্রহণ প্রায় শেষ আপালচাঁদ সংলগ্ন মেচবস্তিতে

#মালবাজার: কথায় আছে “যেখানে বাঘের সেখানে তারাতাড়ি সন্ধ্যা হয়”। এখন আর বাঘের দেখা পাওয়া না গেলেও হাতি সহ বন্যপ্রাণীর উপদ্রব আছে। বিশেষ করে চা বাগান ও বনবস্তি এলাকায় চিতাবাঘ, হাতি সহ অন্যান্য বন্য জন্তুর উপদ্রব আছে। এজন্য বন বস্তি গুলিতে  ভোট গ্রহণের জন্য বিশেষ রকম  সতর্কতা নেওয়া হয়। যারা ভোট দেন তারাও দুপুরের মধ্যেই ভোট দিয়ে বাড়ি ফিরে আসেন।
এই রকম এক ভোট গ্রহণ রয়েছে মাল ব্লকের আপালচাদ বনাঞ্চল সংলগ্ন মেচবস্তি। বৈকুন্ঠপুর
ডিভিশনের তারঘেরা রেঞ্জের এই বনবস্তির চার দিক বনাঞ্চল ঘেরা। ছড়িয়ে ছিটিয়ে প্রায় ৩০০ পরিবারের বাস। একটি মাত্র ভোট কেন্দ্রের ভোটার প্রায় সাতশ। হাতি চিতার উপদ্রব নিত্য সঙ্গী। এহেন ভোট কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ রীতিমতো চ্যালেঞ্জ প্রশাসনের কাছে। সেজন্য নেওয়া হয়েছে বারতি সতর্কতা। কেন্দ্রীয় বাহিনীর সাথে ছিল বনকর্মীদের একটি দল।
এই ভোট কেন্দ্রের ভোটাররাও বেলা থাকতে থাকতে ভোট শেষ করেন। ভোটার তারা শৈব, বীরেন শৈব জানান, বিকাল হতেই হাতির দল এক বন থেকে বেরিয়ে অন্যত্র যাতায়াত করে। এজন্য তারাতাড়ি ভোট দেই। সেক্টর অফিসার মানস দে জানান, বেলা ১টার মধ্যে ৭১% ভোট শান্তিতে হয়ে গেছে। বিশেষ সতর্কতা হিসেবে বনকর্মীদের ট্যাগিং করা হয়েছে।
বিট অফিসার শ্যাম তামাং জানান, ভোট শেষ হতেই আমরা রেসকিউ করে ভোট কর্মীদের বনাঞ্চলের এলাকা পার করে দেব। ভোটারদের কাছ থেকে জানাগেছে, এই ভোট কেন্দ্রে বেলা ৩টার মধ্যে ভোট শেষ হয়ে যায়। তারপর কেউ বনাঞ্চলের রাস্তায় চলাচল করেনা।
News Britant
Author: News Britant

Leave a Comment

Choose অবস্থা